ঢাকাTuesday , 14 June 2022
  1. অন্যান্য
  2. অর্থ ও বানিজ্য
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্রাইম নিউজ
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. জাতীয়
  8. বিনোদন
  9. বিভাগের খবর
  10. রাজনীতি
  11. সর্বশেষ সংবাদ
  12. সারা বাংলা

অবসান হচ্ছে গোমা সেতু নিয়ে সৃষ্ট সব জটিলতার

Barishal RUPANTOR
June 14, 2022 4:19 pm
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার রাঙ্গামাটিতে নির্মাণাধীন গোমা সেতু নিয়ে সৃষ্ট সব জটিলতার অবসান হয়েছে। সেতুর নির্মাণে ৯২ কোটি ৪৪ লাখ ৮৯ হাজার টাকা সংশোধিত প্রকল্প অনুমোদনের জন্য আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (একনেক) সভায় উঠতে পারে।

প্রকল্পটি অনুমোদন হলে ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়ন করবে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ। ৪৪ ভাগ নির্মাণকাজ সম্পন্ন হওয়ার পর উচ্চতা নিয়ে বিআইডব্লিউটিএর আপত্তিতে কাজ দুই বছর ধরে বন্ধ রয়েছে।

সওজ বরিশালের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী একেএম আজাদ বলেন, একনেকের সভায় গোমা সেতু নির্মাণ সংশোধিত প্রকল্প তালিকাভুক্ত হয়েছে। সওজ সূত্রে জানা গেছে, সংশোধিত প্রকল্পে সেতুর নকশায় পরিবর্তন আনা হয়েছে।

নতুন নকশায় নদীপথ সচল রাখার জন্য বিআইডব্লিউটিএর দাবি অনুযায়ী সর্বোচ্চ জোয়ারের সময় সেতুর মাঝ বরাবর উচ্চতা রাখা হয়েছে ১২ দশমিক ৪ মিটার। সংশোধিত প্রকল্পে ব্যয় বেড়েছে ৩৪ কোটি ৮২ লাখ ৭৪ হাজার টাকা।

প্রকল্পে বলা হয়েছে, বরিশাল-লক্ষ্মীপাশা-দুমকী জেলা সড়কের ১৪ কিলোমিটারে রাঙ্গামাটি নদীর ওপর ১০ দশমিক ২৫ মিটার প্রশস্ত দুই লেনে সেতু নির্মিত হবে। দৈর্ঘ্য হবে ২৮৩ দশমিক ১৮৮ মিটার।

সূত্র জানায়, ৫৭ কোটি ৬২ লাখ ১৫ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ৩ বছর মেয়াদের প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়েছিল ২০১৭ সালে। এ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০২০ সালের জুনে। বিআইডব্লিউটিএর আপত্তির পর অনিশ্চয়তায় পড়েছিল প্রকল্পটি। পরে সংশোধিত প্রকল্প গ্রহণ করে সংশ্নিষ্ট মন্ত্রণালয়।

জানা গেছে, প্রথম প্রকল্প অনুযায়ী মাঝ বরাবর সেতুর উচ্চতা রাখা হয়েছিল সর্বোচ্চ জোয়ারের সময় ৭ দশমিক ৮৬ মিটার। পিলার স্থাপন সম্পন্নের পর বিআইডব্লিউটিএ আপত্তি তুলে জানায়, এ উচ্চতায় রাঙ্গামাটি নদীতে নৌযান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে।

নৌযান চলাচল স্বাভাবিক রাখার জন্য উচ্চতা প্রয়োজন কমপক্ষে ১২ দশমিক ২ মিটার। তখন সওজ থেকে দাবি করা হয়, উচ্চতা নিয়ে বিআইডব্লিউটিএর চূড়ান্ত সম্মতিপত্র নিয়েই প্রকল্পটি অনুমোদন হয়েছিল। নতুন আপত্তিতে প্রকল্পটি ভেস্তে যাবে।

সওজ বরিশালের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী লিটন আহমেদ খান জানান, বিআইডব্লিউটিএর দাবি অনুযায়ী সংশোধিত প্রকল্পে সেতুর মাঝে উচ্চতা রাখা হয়েছে ১২ দশমিক ৪ মিটার। এ জন্য নদীর মধ্যে দুটি পিলারের উচ্চতা বৃদ্ধি এবং গার্ডার নির্মাণে কংক্রিটের বদলে স্টিলের পাত ব্যবহার করা হবে।

বাকেরগঞ্জ উপজেলার সন্তান জাসদের যুগ্মসম্পাদক মো. মহসিন বলেন, সেতুটি নির্মাণ হলে বরিশালের সঙ্গে পটুয়াখালীর দুমকী ও বাউফল উপজেলার সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ সহজ হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।