ঢাকাMonday , 30 May 2022
  1. অন্যান্য
  2. অর্থ ও বানিজ্য
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্রাইম নিউজ
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. জাতীয়
  8. বিনোদন
  9. বিভাগের খবর
  10. রাজনীতি
  11. সর্বশেষ সংবাদ
  12. সারা বাংলা

মুলাদীতে হত্যা মামলাকে ভিন্নখাতে নেওয়ার চেষ্টা, শঙ্কিত বাদীর পরিবার

Barishal RUPANTOR
May 30, 2022 8:46 pm
Link Copied!

মুলাদী প্রতিনিধি: মুলাদীতে হত্যা মামলাকে ভিন্নখাতে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের চরকমিশনার গ্রামের মনির হাওলাদার হত্যা মামলাকে ভিন্নখাতে নেওয়ার চেষ্টা করছে স্থানীয় একটি মহল। ওই মহলটি হত্যাকারীদের আড়াল করতে অন্যের ঘাড়ে দায় চাপানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

 

এনিয়ে বাদী ও নিহতের পরিবারের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। চরকমিশনার গ্রামের ওই মহলটি গণমাধ্যমকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে এবং হত্যাকা-ের মোটিভ নিয়ে জনমনে বিভ্রান্ত ছড়িয়ে হত্যা মামলার তদন্তকে বাঁধাগ্রস্থ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। জানা গেছে, গত ২৩ মে সোমবার রাতে চরকমিশনার গ্রামের সালাম হাওলাদারের ছেলে মনির হাওলাদারের চোখ তুলে নিয়ে গলাকেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

 

পরদিন মঙ্গলবার ওই এলাকার একটি বিলের মধ্য থেকে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। ঘটনার দিন রাতেই নিহতের ছোট ভাই পারভেজ হাওলাদার ওরফে পাবেল বাদী হয়ে একই গ্রামের মৃত আবুল কালাম ওরফে কলম সরদারের ছেলে কামাল সরদারসহ ২১জনকে আসামী করে মুলাদী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। নিহতের ভাই পারভেজ হাওলাদার ওরফে পাবেল বলেন, আমার ভাই মনির হাওলাদার সহজ সরল প্রকৃতির ছিলো।

 

তার সঙ্গে কারও শত্রুতা থাকার কথা নয়। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে কামাল সরদারের গরুর ফার্মের কাজ করেছেন। কামাল সরদার কয়েক মাস ধরে বেতন না দেওয়ায় কাজ ছেড়ে দেন মনির। ঘটনার আগের দিন অর্থ্যাৎ ২২ মে সকালে মীরগঞ্জ ফেরিঘাটে কামাল সরদারকে পেয়ে মনির তাঁর পাওনা টাকা চান। এতে কামাল সরদার ক্ষিপ্ত হয়ে টাকা দিবেন না বলে জানিয়ে দেয়। পরে বিষয়টি নিয়ে কামাল সরদারের লোকজন মনিরকে থানা পুলিশের ভয় দেখায়।

 

২৩ মে রাতে মনির বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয় এবং ২৪ মে সকালে গলাকাটা মরদেহু পাওয়া যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চরকমিশনার গ্রামের এক বাসিন্দা জানান, ঘটনার পর থেকে কামাল সরদার ও তার কয়েকজন সহযোগীর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। কামাল সরদারের অন্যতম সহযোগী মোসলেম হাওলাদারে ছেলে কামাল হাওলাদার ওরফে করল্লা কামাল এলাকায় বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়াচ্ছে।

 

কামাল হাওলাদারর গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে বলেছেন যে, মীরগঞ্জ খেয়াঘাটের ইজারা বদল হওয়ার জেরে মনির হাওলাদার খুন হয়েছে। কামাল হাওলাদারের এই বক্তব্যে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। স্থানীয়দের ধারণা কামাল হাওলাদার এই খুনের সাথে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে জড়িত থাকতে পারে। তাঁর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে প্রকৃত সত্য বেড়িয়ে আসতে পারে।

 

চরকমিশনার গ্রামের এক নারী জানান, মনির হাওলাদারের সাথে তাঁর চাচাতো ভাই কামাল হাওলাদারের বিরোধ ছিলো। এমনকি মনির হাওলাদার খুন হওয়ার আগের দিনও কামাল হাওলাদার তাদের প্রতিপক্ষ ছিলো। মনিরের মরদেহ পাওয়ার পর পরই কামাল হাওলাদার উল্টো ড্রাইভ দিয়ে বাদী ও তার পরিবারকে আপন করে নেওয়ার চেষ্টা করছে।

 

প্রকৃত খুনিদের আড়াল করতে কামাল হাওলাদার এই অপকৌশল নিয়েছেন বলে সন্দেহ করেন ওই নারী। মুলাদী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ুম বলেন, কামাল হাওলাদারের বক্তব্যের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া মামলার রহস্য উদ্ঘাটন ও খুনিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।