ঢাকাSaturday , 14 May 2022
  1. অন্যান্য
  2. অর্থ ও বানিজ্য
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্রাইম নিউজ
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. জাতীয়
  8. বিনোদন
  9. বিভাগের খবর
  10. রাজনীতি
  11. সর্বশেষ সংবাদ
  12. সারা বাংলা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাঠেরভিটা থেকে গয়টাপাড়া রাস্তার বেহাল দশা ৫ গ্রামের মানুষের দূর্ভোগ

Barishal RUPANTOR
May 14, 2022 6:29 pm
Link Copied!

লিটন চৌধুরী রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি >> কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের ৫ গ্রামের মানুষের উপজেলা সদরে আসা যাওয়ার একমাত্র রাস্তা গয়টাপাড়া থেকে মাঠেরভিটা রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এক কিলোমিটার রাস্তায় ৫ থেকে ৬ জন মিলে ঠেলা না দিলে ভ্যানগাড়ি, অটো রিক্সাসহ কোন বাহন চলাচল করতে পারছেনা। ফলে চরম দূর্ভোগে স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ ৫ গ্রামের মানুষ।

 

দ্রুত রাস্তাটি সংস্কারের দাবি এলাকা বাসির। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার চৎলাকান্দা, কলমেরচর, গয়টাপাড়া, উত্তর শৌলমারী ও দক্ষিণ বোয়ালমারী গ্রামের চলাচলের একমাত্র রাস্তা মাঠেরভিটা থেকে গয়টাপাড়া পর্যন্ত দুই কিলোমিটার।

 

এর মধ্যে এক কিলোমিটার রাস্তা সর্ম্পূণ চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এসময় কথা হয় চৎলাকান্দা গ্রামের ব্যাটারি চালিত অটো ভ্যান চালক রফিকুলের সাথে তিনি বলেন, কলমের চর ব্রীজের মাথা হইতে চৎলাকান্দা গ্রামের আলমের বাড়ি পর্যন্ত এক কিলোমিটার রাস্তায় হাটু পর্যন্ত কাদা হওয়ায় ৫ থেকে ৬ জন ঠেলা না দিলে কোন গাড়ি চলাচল করতে পারছে না। কয়েক টি ভ্যানচালক একত্রিত হয়ে চরম ভোগান্তিতে আমাদের ভ্যান চালাতে হচ্ছে।

 

জীবিকার তাগিদে কষ্ট করে এই রাস্তায় ভ্যান চালাই। সরকার মানবিক দিক বিবেচনা করে দ্রুত রাস্তাটি সংস্কারের দাবি তার। গয়টাপাড়া গ্রামের প্রাক্তন ইউপি সদস্য আবুল হোসেন বলেন, সারা দেশে উন্নয়ন হলেও বঞ্চিত হয়েছি আমারা।

 

গয়টাপাড়া থেকে রৌমারী বাজারের দুরুত্ব ৪ কিলোমিটার। এখানে ধান,গম, ভুট্টার ৫০ কেজির ১ বস্তায় বাহন খরচ পরে ৫০ টাকা, অথচ দাঁতভাঙ্গা থেকে রৌমারী বাজারের দুরুত্ব ১০ কিলোমিটার রাস্তা ভালো থাকায় সেখানে ১ বস্তায় বাহন খরচ ২০ টাকা। ফলে আমারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।

 

ওই গ্রামের রিয়াজুল হক, আব্দুল গফুর, মমিন উদ্দিন ও সোনা মিয়া বলেন, আমাদের গ্রামে কেউ অসুস্থ হলে রাস্তা খারাপের কারণে কোন ডাক্তার আসতে চায় না। রোগীকে দ্রুত হাসপাতলেও নেওয়া যায় না।

 

বিশেষ করে গর্ভবতী মায়েদের পরতে হয় চরম দূর্ভোগে। চৎলাকান্দ গ্রামের শাহিন মিয়া (৫৫) বলেন, এই রাস্তাটি সংস্কার না করায় স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের সময় মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারে না। একটু বৃষ্টি হলে রাস্তার অবস্থা এতটাই খারাপ হয় ওই দিন আর তাদের স্কুল কলেজে যাওয়া হয় না।

 

জন প্রতিনিধিরা ভোটের সময় প্রতিশ্রুতি দেয় কিন্তু ভোট ফুরালে তাদের আর খুঁজে পাওয়া যায় না। আমাদের ভোগান্তি চিরকাল। স্থানীয় প্রসাশনের কাছে আমাদের দাবি জনগণের ভোগান্তি লাঘবে দ্রুত রাস্তটি সংস্কার করা হোক।

 

শৌলমারী ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ওই রাস্তাটি টেন্ডার হয়েছে, সেখানে আবার নতুন করে প্রকল্প দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। যে ঠিকাদার কাজ পেয়েছে আমি তার সাথে একাধিকবার কথা বলেছি দ্রুত রাস্তার কাজ শুরু করার জন্য।

 

তারা বৃষ্টির অজুহাতে কাজ শুরু করছেন না। উপজেলা প্রকৌশলী যুবায়েদ হোসেন বলেন, রাস্তাটি গত একমাস আগে পাকা করণের টেন্ডার হয়েছে। ওর্য়াক অডারের ১ সপ্তাহের মধ্যে কাজ শুরুর কথা কিন্তু বৃষ্টির কারণে ঠিকাদার কাজ শুরু করেননি। যেহেতু এক বছর মেয়াদ আছে সেহেতু আমরা জোর করে কিছু বলতে পারছি না। তার পরেও ঠিকাদারকে দ্রুত কাজটি শুরু করার তাগিদ দেওয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।